ঢাকাMonday , 22 April 2024

সিরাজগঞ্জে ৪ পৌর মেয়র এমপি পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী

বাংলা ডেস্ক
নভেম্বর ১১, ২০২৩ ৪:৫৬ অপরাহ্ণ । ১১৩ জন
link Copied

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতোমধ্যে ব্যানার ফেষ্টুন লাগিয়েছেন। তবে এর মধ্যে কিছুটা ব্যতিক্রম হচ্ছে সিরাজগঞ্জে ছয়টি পৌরসভার মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে এমপি প্রার্থী হতে চান জেলার চারটি পৌরসভার মেয়র।

মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে জনসভা, উঠান বৈঠক করছেন। নির্বাচনী এলাকা জুড়ে লাগিয়েছেন ব্যানার ফেষ্টুন। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সমর্থন পেতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন তারা।

মেয়র থেকে এমপি মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা হলেন, সিরাজগঞ্জ-২ (সদর ও কামারখন্দ) আসন থেকে সিরাজগঞ্জ পৌরসভার টানা দুবার নির্বাচিত মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা, সিরাজগঞ্জ-৪ (উল্লপাড়া) আসনে উল্লাপাড়ার পৌরসভার দুবারের নির্বাচিত মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি- চৌহালী) আসনে সাবেক ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা বেলকুচি পৌরসভার মেয়র সাজ্জাদুল হক রেজা এবং সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসনে শাহজাদপুর পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনির আক্তার খান তরু লোদি।

অন্যতম ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদ সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। পর পর দু’বার পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এবার তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।
মেয়র সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা বলেন, আমি আশা করছি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দেবেন। মনোনয়ন পেলে পৌর নির্বাচনের মতই সংসদ নির্বাচনেও এ আসনটি শেখ হাসিনাকে উপহার দিয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবো।

উল্লাপাড়া উপজেলায় ছাত্রলীগ, যুবলীগের রাজনীতি করার পর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন এস এম নজরুল ইসলাম। তিনি বর্তমানে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। গত দুই মেয়াদে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে মেয়র নির্বাচিত হন।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার লক্ষ্যে তিনি গত তিন বছর ধরে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। নিজ উদ্যোগে তিনি উপজেলার শতাধিক কবরস্থান আলোকিত করেছেন। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের আস্থা অর্জনের প্রতিটি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে চলেছেন।

মেয়র নজরুল ইসলাম বলেন, গত তিন বছর ধরে আমি নির্বাচনী মাঠে রয়েছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে এই আসনে মনোনয়ন দেন বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন বলে তার দাবী।

বেলকুচি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক সাজ্জাদুল হক রেজা বেলকুচি পৌরসভার গত নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে দলীয় সভানেত্রীর সাধারণ ক্ষমায় আবারও দলে ফিরেছেন তিনি। এবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে বেলকুচি ও চৌহালী এলাকায় পথসভা, গণসংযোগ করে বেড়াচ্ছেন এই মেয়র।

বিগত পৌর নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতীকে শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন মনির আক্তার খান তরু লোদী। এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সংসদ সদস্য মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়ে দিনরাত প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। মনির আক্তার খান তরু লোদি বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে রাজনীতি করি। পৌর সভার উন্নয়নে কাজ করছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনীত করলে শাহজাদপুরবাসী বিপুল ভোটে জয়ী করবে বলে তিনি দাবী করেন।

এবি/এসআর