ঢাকাSaturday , 2 March 2024
  • অন্যান্য

ইইউ’র চাওয়া প্রসঙ্গে কাদেরের মন্তব্যকে ভন্ডামি বললেন রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নভেম্বর ৩০, ২০২৩ ৬:১৭ অপরাহ্ণ । ৬১ জন
link Copied

ইউরোপীয় ইউনিয়নের চাওয়া অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন, আওয়ামী লীগের চাওয়া একই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যকে প্রতারণা এবং ভন্ডামি ছাড়া কিছুই নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি সিনিায়ার যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন যে মন্তব্য করেছে তাদের কথার সাথে ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছে আমরা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে একমত। তারা (ইউরোপীয় ইউনিয়ন) শুধু আওয়ামী লীগের অংশগ্রহণে নির্বাচনের কথা না সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনের কথা বলেছে, সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বলেছে। তাহলে একমত হলেন কিভাবে? আপনারাতো কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না পেয়ে একজন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আর একজন নৌকার প্রার্থী এদের মাঝে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে এমন একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হবে এটা হচ্ছে ওবায়দুল কাদের ও শেখ হাসিনার মনোভাব। বড় বড় রাজনৈতিক দলের দরকার নেই প্রতিদ্বন্দ্বী হবে আওয়ামী লীগ এবং নৌকার এবং এটা হবে সুষ্ঠু নির্বাচন এই জন্য সবাইকে নমিনেশন জমা দিতে বলেছে তারা। এটাকে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের অভিমত এবং তাদের একমত মনে করছে। এটা যে কতটুকু প্রতারণা এবং ভন্ডামি সেটা দেশের মানুষ হারে হারে টের পাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার বিকালে ভার্চুয়ালি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, দুঃসময়ে এদেশের মানুষ এক ক্লান্তিকাল অতিক্রম করছে। জীবন জীবিকার নিরাপত্তা সাধারণ চলাফেরা সবকিছু এখন বিপদের মুখে। মানুষদেরকে অতল গহ্বরের মুখে ঠেলে দিয়ে শেখ হাসিনা এবং ওবায়দুল কাদের সু স্বপ্নে বিভোর হয়ে আছে তাদের ক্ষমতা আকড়ে রাখার জন্য। দেশের জনগণের যে আকাঙ্ক্ষা ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের কোন কিছুর তোয়াক্কা করছে না তারা। এর একটাই কারণ হলো গত ১৫ বছরে তারা যে লুটপাট করেছে টাকা পাচার করেছে ইউরোপ আমেরিকায় পরিবার পাঠিয়ে বেগম পাড়া বানিয়েছে এই বাস্তবিক স্বপ্ন থেকে তারা বেরিয়ে আসতে চায় না।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বললেই তারা (আওয়ামী লীগ) তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠে। কারণ তারা যে অবৈধ পথে সম্পদ অর্জন করেছে তারা মনে করে সেগুলো নিয়ে তারা থাকতে পারবে না। এইজন্যে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা উঠলেই তারা আতকে ওঠে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কড়া সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদের মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বলেছে শিষ্টাচার মেনে চলতে আপনি(কাদের) সকল শিষ্টাচার ধ্বংস করে শিষ্টাচারের কথা বলছেন এটা কি আপনার মুখে মানায়? আপনারা দেশের জনগণ ও বিরোধী দলের সাথে যে শিষ্টাচার করছেন এগুলো কি আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টির বাইরে? তারাতো শুধু অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বলেছে এই বলাটাই শিষ্টাচারের বহির্ভূত বলে মনে করছে ওবায়দুল কাদের। আপনারা যে অত্যাচার নির্যাতন জুলুম করছেন এগুলো কি আন্তর্জাতিক বা বিভিন্ন দেশের নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন সংগঠন আছে যারা বিভিন্ন দেশের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে তারা কি জানে না? তারা এসব তথ্য সংগ্রহ করেই তারপরে তারা একটা মতামত দেয়। আর এই মতামত যদি সরকার বিরোধী হয় তাহলে তারা (সরকার) রাগান্বিত হয়।

বিএনপির এই নেতা বলেন, এই সরকার তার কর্তৃত্ববাদী শাসন এমন পর্যায়ে নিয়ে গেছে যে সরকারের বিরুদ্ধে টু শব্দ করলেও তার মহাবিপদ আছে। হয় দীর্ঘদিনের জন্য সে জেলে থাকবে না হলে একেবারে চিরতরে গুম করে দিবে না হলে তার লাশ খালে বিলে পড়ে থাকবে।

তিনি বলেন, কিছুদিন আগে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তাদের এক প্রতিবেদনে বলেছে বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিরোধী দল ও সমালোচকদের ওপর অব্যাহত আক্রমণ চালিয়ে যাচ্ছে তাতে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজনটি অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর একটা একতরফা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার । আপনারা যে জাল জালিয়াতি করে নির্বাচন করছেন এটা পৃথিবীব্যাপী স্বীকৃত।

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের বিনা দোষে গ্রেফতার করেছে। নেতাকর্মীদের না পেলে তার ভাই বাবা-মা এমনকি স্ত্রীদেরকেও ধরে নিয়ে গেছে। পৃথিবীর কোন দেশে সভ্যতা থাকলে কি এরকম করতে পারে? এটা করে ফ্যাসিস্ট ও নাৎসিরা।

তিনি আরও বলেন, গতকাল অবরোধ ও আজ হরতাল জনগণের সমর্থনে সফল হয়েছে। এবং নেতাকর্মীরা তাদের জীবন বাজি রেখে রক্ষী বাহিনী পুলিশ র‍্যাবের সাঁড়াশি অভিযানের মুখেও তারা রাস্তায় দাঁড়িয়েছে শান্তিপূর্ণভাবে অবরোধ পালন করেছে। সেজন্য তারেক রহমান নেতাকর্মীদেরকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

এনপি